ইতিবাচক সাড়া শ্রীলঙ্কার

বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কা সফর নিয়ে দু'দিন আগেও যে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছিল, তা কিছুটা হলেও কেটে গেছে দেশটির যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নামাল রাজাপাকসের উদ্যোগে। বিসিবিকে গতকাল যে বার্তা দিয়েছে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি), তাতে ইতিবাচকভাবে এগোচ্ছে সফরের প্রক্রিয়া।

একাধিক সূত্র থেকে জানা গেছে টুকরো টুকরো কিছু অগ্রগতির খবর। বিসিবির প্রভাবশালী একজন পরিচালক জানান, ক্রীড়ামন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে বায়োসিকিউর পরিকল্পনায় কিছু পরিবর্তন আনতে রাজি হয়েছেন শ্রীলঙ্কান স্বাস্থ্যমন্ত্রী পবিত্রা অন্নিরাচ্চি। লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড সূত্র সমকালকে জানায়, বিসিবির প্রস্তাব অনুযায়ী টাইগারদের সাত দিনের কোয়ারেন্টাইন চেয়ে গতকাল দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে তারা।

এসএলসির কাছ থেকে বায়োসিকিউর বাবল পাওয়ার পর সোমবার কড়া প্রতিক্রিয়া জানান বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তৈরি বায়োসিকিউর বাবল মেনে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন করতে হলে তা জেল-জীবনের চেয়েও কঠিন হতো ক্রিকেটারদের জন্য। অবাস্তব সব শর্ত জুড়ে দেওয়া হয়েছে তাতে। এমন শর্ত মেনে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ খেলা সম্ভব হতো না। সোমবার রাতে ই-মেইলে চিঠি দিয়ে শর্ত শিথিল করতে শেষ অনুরোধ গেছে বিসিবি থেকে। অনুশীলন করার সুযোগ চাওয়া হয়েছে কোয়ারেন্টাইন সময়ে। প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা ও অনুশীলনের ব্যবস্থা রাখা হলে কোয়ারেন্টাইন নিয়ে হয়তো আপত্তি করবে না বিসিবি।

ইংল্যান্ডে যত দল খেলতে গেছে কোয়ারেন্টানকালে তাদের দেওয়া হয়েছে অনুশীলন সুবিধা। বায়োসিকিউর বাবল অনুযায়ী দ্বিতীয় কভিড টেস্টের পরই মাঠে নামতে পেরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, আয়ারল্যান্ড, পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া। ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড প্রতিটি দেশকেই তাদের বায়ো-বাবল নকশা দিয়েছে। সে অনুযায়ী শ্রীলঙ্কার কাছ থেকেও ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন সময়ে অনুশীলন সুবিধা চেয়েছিল বিসিবি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের গাইড লাইনেও অনুরূপ নির্দেশনা দেওয়া আছে। অথচ দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় হোটেলকক্ষে 'বন্দি' করে রাখতে চেয়েছিল বাংলাদেশ দলের সদস্যদের।

গতকাল জানা গেছে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করতে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হচ্ছে টাইগারদের 'ট্যুর প্ল্যানে'। শেষ পর্যন্ত ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন রাখা হলেও অনুশীলনের সুযোগ দেওয়া হবে মুমিনুলদের। বিসিবির চাওয়া অনুযায়ী ৪২ জনের বহর নিয়ে সফরের অনুমোদন দেওয়া হতে পারে। যদিও এ ব্যাপারে গতকাল পর্যন্ত এসএলসির কাছ থেকে লিখিত কিছু পাওয়া যায়নি বলে জানান সিইও নিজামউদ্দিন চৌধুরী। তবে দুই বোর্ডের সিইওর মধ্যে ফোনে ইতিবাচক কথা হয়েছে বলে জানান বিসিবির এক কর্মকর্তা। আজ আনুষ্ঠানিক নতুন 'ট্যুর প্ল্যান' পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান।

তবে বিসিবি জেনেছে, লঙ্কান কোচ মিকি আর্থার খুব করে চান টেস্ট সিরিজটি হোক। এসএলসির কাছে সেটা জানিয়েছেনও তিনি। বাংলাদেশের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোও সফর নিয়ে আশাবাদী। কারণ সিরিজটি বাতিল হলে দু'দেশের জন্যই ক্ষতি। এ বছর আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা হবে না তাদের। এফটিপিতে বাংলাদেশের খেলা নেই। আর ডিসেম্বরে দক্ষিণ আফ্রিকা লঙ্কা সফর করতে পারবে না আইসিসি নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায়। এ ছাড়াও টাইগারদের সফর বাতিল হলে লঙ্কান এলপিএলের আয়োজনের পরিকল্পনাও ভেস্তে যেতে পারে।

সর্বশেষ সংবাদ